অস্ট্রেলিয়ায় পড়াশোনা করার উপায় ২০২৪

অস্ট্রেলিয়ায় পড়াশোনা করার উপায় ২০২৪ সম্পর্কে জানতে যারা আমাদের এই আর্টিকেলটি ওপেন করেছেন তাদের আমরা অস্ট্রেলিয়ায় পড়াশোনা করার উপায় ২০২৪ সম্পর্কে যাবতীয় প্রশ্নের উত্তর জানাবো। আজকের এই আর্টিকেল এর মাধ্যমে আপনারা অস্ট্রেলিয়ায় পড়াশোনা করার উপায় ২০২৪ সম্পর্কে বিস্তারিত ভাবে জানতে পারবেন।

অস্ট্রেলিয়ায় পড়াশোনা করার উপায় ২০২৪

তাহলে আসুন কথা না বাড়িয়ে অস্ট্রেলিয়ায় পড়াশোনা করার উপায় ২০২৪ সম্পর্কে আজকের এই আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়তে থাকি। উক্ত বিষয়টি সম্পর্কে জানতে হলে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত মনোযোগ সহকারে পড়তে হবে।

সূচিপত্রঃ অস্ট্রেলিয়ায় পড়াশোনা করার উপায় ২০২৪

অস্ট্রেলিয়ায় পড়াশোনা করার উপায় ২০২৪

অস্ট্রেলিয়া পড়ালেখার জন্য খুবই মান উন্নত একটি দেশ। অস্ট্রেলিয়ায় শিক্ষা ব্যবস্থা অনেক সুন্দর।দেশের স্টুডেন্ট হিসেবে অনেকেরেই অস্ট্রেলিয়ায় পড়ার স্বপ্ন থাকে, কিন্তু অস্ট্রেলিয়ায় পড়াশোনা করার উপায় ২০২৪ সম্পর্কে আপনাদের জানাবো। প্রতিবছর অস্ট্রেলিয়ায় পড়াশোনা করার জন্য হাজার হাজার শিক্ষার্থী অস্ট্রেলিয়ার ভিড় জামায়।

আরো পড়ুনঃ ইউরোপের কোন দেশ স্টুডেন্ট ভিসা পাওয়া সহজ ২০২৪

কেউ যদি উচ্চ শিক্ষার জন্য বিদেশে পাড়ি জামাতে চাই এবং উচ্চ শিক্ষার জন্য কোন দেশ সবচাইতে ভালো হবে তাহলে অনেকেই অস্ট্রেলিয়ার মত দেশগুলো বাছাই করে থাকেন। কারণ অস্ট্রেলিয়া হলো বিশ্বের তৃতীয়তম দেশ যেখানে শিক্ষার মান ব্যবস্থা অনেক উন্নত। এদের মধ্যে অনেক ছাত্র-ছাত্রী রয়েছে যারা অস্ট্রেলিয়াতে পড়াশোনার পাশাপাশি অনেক ধরনের কাজ করে থাকে এবং অর্থ উপার্জন করে থাকে।

তাই অস্ট্রেলিয়ার মত দেশগুলোতে স্টুডেন্ট ভিসায় গিয়েও আপনি পার্ট টাইম জব করে আপনার লেখাপড়ার খরচ চালাতে পারবেন।তাই অস্ট্রেলিয়ায় পড়াশোনা করার উপায় ২০২৪ সম্পর্কে আজকের এই আর্টিকেলের মাধ্যমে আপনাদের আমরা অস্ট্রেলিয়ার পড়াশোনা করার জন্য কি কি প্রয়োজন সে সম্পর্কে বিস্তারিত ভাবে আলোচনা করব। আমাদের এই আর্টিকেলটি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পড়লে আপনি অবশ্যই অস্ট্রেলিয়ায় পড়াশোনা করার উপায় ২০২৪ সম্পর্কে সঠিকভাবে জানতে পারবেন।

অস্ট্রেলিয়ায় কি কি শিক্ষা কোর্স অফার করছে

যারা অস্ট্রেলিয়ায় পড়াশোনা করার উপায় ২০২৪ সম্পর্কে জানতে আজকের এই আর্টিকেলটি ওপেন করেছেন তাদের জন্য আমরা অস্ট্রেলিয়ায় কি কি শিক্ষা কোর্স অফার করছে সে সম্পর্কেও জানাবো।

অস্ট্রেলিয়ায় বিভিন্ন ধরনের নতুন নতুন কোর্স অফার করে থাকে। অস্ট্রেলিয়া কতৃপক্ষ নতুন করে সাধারণ কয়েক ধরনের কোর্সগুলো হলঃ ব্যাচেলর'স, মাস্টার'স, পোস্ট গ্রাজুয়েশন ডিপ্লোমা ইন পিএইচডি বিভিন্ন প্রোগ্রাম রয়েছে। কিন্তু তারা এখানে অফার করে থাকে মূলত মাস্টার্স, পোস্টমাস্টার ব্যাচেলার্স ডিগ্রি।

এসকল কোর্স বা ডিগ্রীকে সাধারণতন প্রফেশনাল কোর্স বলা হয়ে থাকে। আপনি এই কোর্সগুলোর ভেতরে যে কোন একটি কোর্স বাছাই করতে পারেন। তবে আপনি যদি ম্যানেজমেন্টের উপর অস্ট্রেলিয়াতে একটা ডিপ্লোমা নিতে চান তাহলে আপনি পোস্ট গ্রাজুয়েশন কোর্সটি একসেপ্টড করতে পারেন। প্রফেশনাল কোর্স হলো- "লাইক এইচ.আর.ম্যানেজমেন্ট বা এক্সপেরিয়েন্স রিলেটেড জব বা স্টাডি করাকে প্রফেশনাল কোর্স বলা হয়ে থাকে"।

অস্ট্রেলিয়ায় স্টুডেন্ট ভিসায় যেতে কি কি যোগ্যতা প্রয়োজন

অস্ট্রেলিয়ায় পড়াশোনা করার উপায় ২০২৪ সম্পর্কে যারা জানতে চান তাদের জন্য অস্ট্রেলিয়া স্টুডেন্ট ভিসায় যেতে কি কি যোগ্যতা প্রয়োজন সে সম্পর্কে জানতে হবে কারণ আপনার যদি এই যোগ্যতা গুলো না থাকে তাহলে কখনোই আপনি অস্ট্রেলিয়ায় স্টুডেন্ট ভিসায় যেতে পারবেন না।তাহলে চলুন অস্ট্রেলিয়ায় স্টুডেন্ট ভিসায় যেতে কি কি যোগ্যতা প্রয়োজন সে সম্পর্কে জেনে নিন।

অস্ট্রেলিয়ার স্টুডেন্ট ভিসা পেতে গেলে অবশ্যই আপনাকে আইএলটিএস স্কোর ভালো থাকতে হবে। অস্ট্রেলিয়ায় বিভিন্ন প্রোগ্রাম রয়েছে আপনি যদি ব্যাচেলার প্রোগ্রামে আবেদন করতে চান তাহলে আপনাকে কমপক্ষে এইচএসসি কমপ্লিট করতে হবে এবং আপনার একাডেমিক রেজাল্ট হতে হবে ৩.৫০ এর উপরে। আপনার ৩.৫ প্লাস হলে আপনি অস্ট্রেলিয়ায় স্টুডেন্ট ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন।

কিন্তু আপনার একাডেমি স্কুল যদি খারাপ হয়ে থাকে আইইএলটিএস স্কোর যদি খারাপ হয়ে থাকে তাহলে আপনি অস্ট্রেলিয়া স্টুডেন্ট ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন কিন্তু এই ক্ষেত্রে আপনাকে অনেক সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে। আবার যদি মাস্টার্স প্রোগ্রামে আবেদন করতে চান তাহলে আপনার ব্যাচেলর'স ডিগ্রীতে( বি.বি.এ-তে) সিক্সটি পার্সেন্ট মার্কস থাকতে হবে।

পরর্বতীতে আপনি মাস্টার্স করলেও আপনি পোস্ট গ্রাজুয়েশন বা ডিপ্লোমার জন্য আবেদন করতে পারবেন আবার ব্যাচেলার্স শেষ করেও পোস্ট গ্রাজুয়েশনের জন্য আবেদন করতে পারবেন। তাই উপরোক্তা যদি আপনার এই যোগ্যতা গুলো থেকে থাকে তাহলে অবশ্যই আপনি অস্ট্রেলিয়া স্টুডেন্ট ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন।

ভিসা আবেদন ও ইন্টারভিউয়ের জন্য নিজেকে কিভাবে প্রস্তুত করবেন

ভিসার পাশাপাশি ইন্টারভিউয়ের প্রস্তুতি নেওয়া জরুরী। যাদের ভিসা কার্যক্রম শেষ হয়ে গেছে তারা ইন্টারভিউ এর জন্য কিভাবে প্রস্তুত নিবেন এবং ইন্টারভিউ এ কিভাবে সফল হবেন এ বিষয়ে বিস্তারিত থাকছে অস্ট্রেলিয়ায় পড়াশোনা করার উপায় ২০২৪ আজকের এই আর্টিকেলে।

সমস্ত ডকুমেন্ট রেডি করে ভিসা দুইভাবে বা দুই পদ্ধতিতে আবেদন করা যায়। অথবা সমস্ত ডকুমেন্ট নিয়ে অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন অথবা কোন এজেন্টের মাধ্যমে সরাসরি অফিসে গিয়েও আবেদন করতে পারেন। এরপর একটি ইন্টারভিউ দিতে হবে অস্ট্রেলিয়া এম্বাসিতে। এবং ইন্টারভিউয়ের সময় আপনার সকল ডকুমেন্ট আপনার সাথে থাকতে হবে।

আরো পড়ুনঃ ইউরোপে স্টুডেন্ট ভিসা পাওয়ার যোগ্যতা ২০২৪

ইন্টারভিউতে অনেকেই মনে করেন সাধারণ জ্ঞান মূলক কোনো প্রশ্ন করবেন কিন্তু সেটি নয় আপনি যে অস্ট্রেলিয়া স্টুডেন্ট ভিসায় যাচ্ছেন সে সম্পর্কে আপনার যাবতীয় প্রশ্ন থাকবে যেমন, এখানে প্রশ্ন করবে আপনি কোন ইউনিভার্সিটিতে যাচ্ছেন, আপনার এখানে খরচ কেমন, আপনার কোন সাবজেক্ট পেয়েছেন, আপনার শরীরের কন্ডিশন কেমন, আপনার এখানে ফিউচার প্লান কি, আপনার ইউনিভার্সিটি ও সাবজেক্ট রিলেটেড প্রশ্ন করতে পারে।

অস্ট্রেলিয়া যাওয়ার জন্য ইন্টারভিউ আপনাকে যে প্রশ্নগুলো করা হবে সে প্রশ্নগুলো আপনি অটোমেটিকলি আগে থেকে জানতে পারবেন তাই ইন্টারভিউয়ের সময় আপনার কোন সমস্যাই হবে না। তারপরও আমাদের সকলেরই একটি পূর্ব প্রস্তুতি থাকা প্রয়োজন। তাই আপনাকে আগে থেকেই পূর্ব প্রস্তুতি মূলকভাবে আপনার বিষয়ে সফল তথ্যগুলো সম্পর্কে আপনাকে অবগত থাকতে হবে।

অস্ট্রেলিয়া স্টুডেন্ট ভিসা পেতে আইইএলটি এস স্কোর কত প্রয়োজন হয়

অস্ট্রেলিয়ায় লেখাপড়া করার জন্য আই এলটিএস স্কোর থাকা প্রয়োজন। অস্ট্রেলিয়ায় বিভিন্ন প্রোগ্রামের জন্য বিভিন্ন আইইএলটিএস স্কোর খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। আপনার I.E.L.T.S স্কোর মিনিমাম 6 হতে হবে।আবার যদি মাস্টার্স প্রোগ্রামে আবেদন করতে চান তাহলে আপনার I.E.L.T.S স্কোর করলে 6.5। এবং পোস্ট গ্রাজুয়েশনের জন্য আবেদন করতে চাইলে আপনার। I.E.L.T.S স্কোর লাগবে মিনিমাম ৬ এবং তাহলেই এখানে ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন।

যদি আপনার I.E.L.T.S স্কোর একটু কম হয় 5.5-5.6 বা 6 এর কম হয়, তাহলেও আপনি আবেদন করতে পারবেন সেক্ষেত্রে আপনার অনেক সময় ভিসা পাওয়ার ক্ষেত্রে জটিলতা তৈরি হতে পারে। এক্ষেত্রে আপনার একাডেমী রেজাল্টটা ভালো থাকতে হবে। অবশ্যই আপনার এইচ.এস.সি. কমপ্লিট থাকতে হবে। 

অস্ট্রেলিয়ায় আপনি কিভাবে ইনভারসিটি নির্বাচন করবেন

দেশে থেকেই আপনি অস্ট্রেলিয়ায় কিভাবে ইনভারসিটি নির্বাচন করবেন তা জানতে পারবেন অস্ট্রেলিয়ায় পড়াশোনা করার উপায় ২০২৪ আজকের এই অংশে। উচ্চশিক্ষার জন্য অস্ট্রেলিয়া অবশ্যই একটি উন্নত দেশ। আপনার আইএলটিএস স্কোর যদি ভালো হয়ে থাকে। তাহলে অবশ্যই আপনি অস্ট্রেলিয়া স্টুডেন্ট ভিসায় গিয়ে সেখানকার সেরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে লেখাপড়া করার সুযোগ পাবেন।

যখন আপনার I.E.L.T.S এ যদি স্কোর যদি ৬ এর উপরে থাকে তাহলে অবশ্যই আপনি অস্ট্রেলিয়ায় উচ্চ শিক্ষার স্বপ্ন দেখতে পারেন। যোগ্যতা অনুসারে আপনার যদি আইইএলটিএস স্কোর অনেক ভালো হয়ে থাকে তাহলে তার পরবর্তী কাজ হলো- ইউনিভার্সিটি নির্বাচন করা। এবংং আপনি যে বিষয়ে পড়াশোনা করতে চাচ্ছেন এবং আপনার ফ্যামিলি যে পরিমানের টিউশন ফি ফ্যামিলি আপনাকে দিতে পারবে সে সাপেক্ষে আপনাকে ইউনিভার্সিটি খুঁজে বের করতে হবে।

ইউনিভার্সিটি খুঁজে বের করার সহজ উপায় রয়েছে, এখান থেকে সব অস্ট্রেলিয়ার ইউনিভার্সিটির লিস্ট থেকে সমস্ত লিস্ট পেয়ে যাবে। অস্ট্রেলিয়ার যে ইউনিভার্সিটি লিস্ট আছে সেটা গুগল থেকে অস্ট্রেলিয়া ইউনিভার্সিটি  ইউনিভার্সিটির ওয়েবসাইটে ঢুকে দেখতে পারেন তারা কি কোর্স অফার করছে, তাদের খরচ কি পরিমাণ খরচ হবে, টিউশন ফি কত, অন্যান্য আরো খরচ কি আছে্‌,সমস্ত বিষয়ে এখানে দেখে একটা সম্যক ধারণা নিতে পাররেন।

দেখার পরে যতটুকু ফ্যামিলির সাধ্য আছে সে অনুযায়ী ইউনিভার্সিটি ভর্তির আবেদন করবেন। প্রত্যেকটি ইউনিভার্সিটিতে অনলাইনে আবেদন করার অপশন থাকে। সেখানে কিছু ইনফরমেশন দিয়ে অনলাইনে আবেদন করা যায় এবং অনলাইনে আবেদন করলে তারা আপনাকে রিপ্লাই দেওয়ার পরেই আপনার কাছ থেকে-( I.E.L.T.S এর সার্টিফিকেট, এ্যকাডেমিক মার্কশিট,রিকমেন্ডেশন লেটার,ব্যাংকের স্টেটমেন্ট ইত্যাদি)  ডকুমেন্টগুলো নিবে।

অস্ট্রেলিয়ায় পার্টটাইম জবের ব্যবস্থা কেমন

যারা উচ্চশিক্ষায় শিক্ষিত হতে অস্ট্রেলিয়ায় পাড়ি জমিয়ে থাকেন এবং মধ্যবিত্ত ফ্যামিলি থেকে যেসব শিক্ষার্থীরা লেখাপড়ার উদ্দেশ্যে অস্ট্রেলিয়ার মত দেশগুলোতে পাড়ি জমিয়ে থাকেন, তাদের জন্য বিশেষ একটি সুবিধা হল লেখাপড়ার পাশাপাশি পার্ট টাইম জবের ব্যবস্থা। কারণ বিদেশে লেখাপড়া করার জন্য খরচ অনেক বেশি হয়ে থাকে এ খরচ জগতে অনেক ফ্যামিলি হিমশিম খেয়ে যায়।

তাই সেখানকার সরকার স্টুডেন্ট ভিসার যারা যেয়ে থাকে তাদের জন্য বিশেষ একটি সুবিধা করেছে পার্টটাইম জব। তারা লেখাপড়ার পাশাপাশি সেখানে পার্ট টাইম জব করো তাদের লেখাপড়া খরচ যোগান দিতে পারবেন এক্ষেত্রে পরিবারের চাপ অনেকটা কমবে। স্টুডেন্ট এর জন্য অস্ট্রেলিয়ায় পার্টটাইম জব এর ব্যবস্থা কেমন এবং সেখানে তারা কত ঘন্টা কাজ করতে পারবে এ বিষয়ে অস্ট্রেলিয়ায় পড়াশোনা করার উপায় ২০২৪ আজকের এই অংশে জানতে পারবেন।

আরো পড়ুনঃ আমেরিকার স্টুডেন্ট ভিসা পাওয়ার যোগ্যতা ২০২৪

এখানে অর্থাৎ অস্ট্রেলিয়াতে সপ্তাহে ২০ ঘন্টা পার্টটাইম কাজ করতে পারবেন এতে আপনার একোমোডেশন এবং ফুড কস্ট কাভার করতে পারবেণ। কিন্তু টিউশন ফি টা অবশ্যই ফ্যামিলি থেকে নিতে হবে। এজন্য আগেই বার বার বলা হয়েছে আপনার ফ্যামিলির যতটুকু টিউশন ফি দেয়ার অ্যাবিলিটি আছে সেই অনুযায়ী ইউনিভার্সিটি খুঁজে বের করবেন। এক্ষেত্রে আপনি খুব সহজেই অস্ট্রেলিয়ার লেখাপড়া করতে পারবেন।

অস্ট্রেলিয়ায় পড়াশোনা করার উপায় ২০২৪ঃ শেষ কথা

প্রিয় পাঠকগণ আজকের এই আর্টিকেলে অস্ট্রেলিয়ায় পড়াশোনা করার উপায় ২০২৪, অস্ট্রেলিয়ায় কি কি শিক্ষা কোর্স অফার করছে? অস্ট্রেলিয়ায় স্টুডেন্ট ভিসায় যেতে কি কি যোগ্যতা প্রয়োজন? ভিসা নির্বাচন ও আবেদনের জন্য নিজেকে কিভাবে প্রস্তুত করবেন? অস্ট্রেলিয়া স্টুডেন্ট ভিসা পেতে আইইএলটি এস স্কোর কত প্রয়োজন হয়? অস্ট্রেলিয়ায় আপনি কিভাবে ইনভারসিটি নির্বাচন করবেন? অস্ট্রেলিয়ায় পার্টটাইম জবের ব্যবস্থা কেমন? এ বিষয়গুলো বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।

আপনি যদি অস্ট্রেলিয়াতে পড়াশোনা করতে যেতে চান তাহলে অবশ্যই সম্পূর্ণ আর্টিকেল মনোযোগ সহকারে পড়ে নেবেন। এতক্ষণ আমাদের সঙ্গে থাকার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। এই ধরনের গুরুত্বপূর্ণ এবং তথ্যমূলক আর্টিকেল নিয়মিত পড়তে আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করুন।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

Skbd IT এর নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url