মামলা হলে কতদিন জেল খাটতে হয়

প্রিয় পাঠক আজকের এই আর্টিকেলে আমরা কারো নামে মামলা হলে কতদিন জেল খাটতে হয় সে বিষয়ে আপনাদের জানাবো। অনেকেই আছেন যারা মামলা সাথে জড়িত হয়ে আছেন।সে ভয়ে অনেকেই ভেবে থাকেন মামলা হলে কতদিন জেল খাটতে হয়। আপনার নামে যদি কোন মামলা হয়ে থাকে তাহলে সে মামলা হলে কতদিন জেল খাটতে হয় এ বিষয়ে জানতে হলে আমাদের আর্টিকেলের সঙ্গে থাকুন।

মামলা হলে কতদিন জেল খাটতে হয়

তাহলে চলুন আমরা আজকের এই আর্টিকেলটি পড়ে মামলা হলে কতদিন জেল খাটতে হয় এ বিষয়ে জেনে নিন। উক্ত বিষয়টি জানতে হলে আপনাকে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত মনোযোগ সহকারে পড়তে হবে।

সূচিপত্রঃ মামলা হলে কতদিন জেল খাটতে হয়

থানায় মামলা করতে কত টাকা লাগে

অনেক সময় মারামারি সংঘর্ষের জন্য কিংবা কোন ঘটনাকে কেন্দ্র করে অনেকেই মামলা করে থাকেন এবং মামলা হলে কতদিন জেল খাটতে হয় বিষয়টা তা নয়। আপনি যদি নির্দোষ প্রমাণিত হয়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই আপনি আদালত থেকে বেকোসুর খালাস পেতে পারেন। কিন্তু আপনার মামলাটি যদি কার্যকরী হয়ে থাকে এবং আপনি যদি ঘটনার সাথে জড়িত থাকেন তাহলে অবশ্যই মামলা হলে কতদিন জেল খাটতে হয় সেটা নির্ভর করবে আপনার ঘটনাকে কেন্দ্র করে।

আরো পড়ুনঃ ল্যাপটপ দিয়ে টাকা ইনকাম করার উপায়

যারা বিভিন্ন ঘটনাকে কেন্দ্র করে বা সংঘর্ষ হানাহানি সাথে জড়িত এবং অনেক ব্যক্তি আছে যারা ন্যায্য বিচার পেতে থানায় মামলা করে থাকেন তাদের থানায় মামলা করতে কত টাকা লাগে সে বিষয়ে জেনে নিন। আপনি যদি থানায় জিডি বা মামলা করতে যান তাহলে সে ক্ষেত্রে আপনার কোন টাকা লাগবে না।

আশা করি এ বিষয়টি বুঝতে পেরেছেন। তাই আপনার বিরুদ্ধে যদি কোন ষড়যন্ত্র বা গুরুতর কোন ঘটনা ঘটে থাকে এর জন্য ন্যায্য বিচার পেতে নিশ্চয়ই আপনি থানায় অভিযোগ পেশ করতে পারেন কোন টাকা ছাড়াই।

মামলা হলে কতদিন জেল খাটতে হয়

আমাদের মনে অনেকেরই প্রশ্ন থাকে মামলা হলে কতদিন জেল খাটতে হয় সেটা বড় কথা নয়। মামলা যদি আপনার বিরুদ্ধে থানায় অথবা কোর্টে হয়ে থাকে এবং সে মামলাটি কোন বিষয় হয়েছে ,এবং সে ঘটনাটি গুরুতর না সাধারণ সেটি ভেবে দেখতে হবে। মামলা যদি গুরুতর হয়ে থাকে তাহলে সে মামলার রায় অনুযায়ী আপনাকে জেল খাটতে হবে।

এবং আপনার নামে যদি কেউ মিথ্যা মামলা করে থাকে এবং মামলা হলে কতদিন জেল খাটতে হয় এ বিষয়ে না ভেবে, আপনাকে উপযুক্ত তথ্য  কোর্টে পেশ করতে হবে।এটি সম্পূর্ণ আপনার নামে একটি মিথ্যা মামলা হয়েছে তাই আপনাকে যথাযথ চেষ্টা করতে হবে নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করার। কোর্ট যতক্ষণ না পর্যন্ত আপনাকে দোষী সাব্যস্ত করছে তোতো তখন পর্যন্ত আপনি নির্দোষ।

কোর্টে গিয়ে আপনি উপযুক্ত সাক্ষী প্রমাণের উপর ভিত্তি করে যদি নির্দোষ প্রমাণিত হন তাহলে আপনাকে কোন জেল খাটতে হবে না। আর যদি আপনি ঘটনার সাথে জড়িত থাকেন তাহলে অবশ্যই আপনাকে সে ঘটনার জন্য উপযুক্ত শাস্তি ভোগ করতে হবে। এবং মামলার জন্য কত দিন জেল খাটতে হয় সেটি আপনাকে জজের রায়ে মাধ্যমে জানতে পারবেন। সে রায়ের মাধ্যমে আপনাকে যতদিন সাজা দেওয়া হয়েছে ততদিনই জেল খাটতে হবে।

ঘটনাটি যদি গুরুতর না হয় তাহলে আপনার আইনজীবীর সাথে কথা বলে জামিনের জন্য আবেদন করতে পারবেন। এমন অনেক ঘটনা রয়েছে যেগুলো জামিনযোগ্য। এবং অনেক ঘটনা রয়েছে যেগুলো জামিনের জন্য অযোগ্য। আপনি যদি কোন মামলায় জড়িত হয়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই আপনি উপযুক্ত সাক্ষী প্রমাণাদি দিয়ে হাইকোর্ট থেকে আগাম জামিনও নিতে পারবেন।

আপনাকে জামিন হতে হলে অবশ্যই একজন নির্ধারিত জামিনদারের জিম্মায় আপনাকে জামিন হতে হবে এবং পরবর্তীতে প্রতিটা নির্ধারিত সময়ে আপনাকে কোর্টে উপস্থিত হতে হবে। আপনি যদি কোর্টে নির্ধারিত সময়ে উপস্থিত না হতে পারেন তাহলে পরবর্তী তারিখে আপনাকে এর কারণ বর্ণনা করতে হবে আপনি যদি উপযুক্ত প্রমাণ না দিতে পারেন তাহলে অবশ্যই আপনার জামিন বাতিল করে আপনাকে জেলে দেওয়া হবে।

অনলাইনে মামলা দেখার উপায়

আপনার মনে যদি সন্দেহ হয়ে থাকে আপনি মামলায় জড়িত হতে পারেন বা জড়িত হয়েছেন এবং মামলা হলে কতদিন জেল খাটতে হয় এ বিষয়ে আপনার মনে সন্দেহ উৎপত্তি হয়েছে তাহলে আপনি খুব সহজেই ঘরে বসে অনলাইন এর মাধ্যমে মামলা দেখতে পারবেন। আজকের এয়ার টিকেটের মাধ্যমে আমরা মামলা হলে কত দিন জেল খাটতে হয় এবং অনলাইনে মামলা দেখার উপায় সম্পর্কে আপনাদের সামনে আলোচনা করব। অনলাইনে আপনি দুটি নিয়মের মাধ্যমে মামলা দেখতে পারবেন।

১। অ্যাপ এর মাধ্যমে 

২। ওয়েব সাইট এর মাধ্যমে 

এ দুইটি উপায়ে অনলাইনের মাধ্যমে আপনি মামলার সকল তথ্য পেয়ে যাবেন এ জন্য আপনার হাতে থাকা স্মার্টফোনের প্রয়োজন এবং সে স্মার্টফোনে অবশ্যই ইন্টারনেটের সংযোগ থাকতে হবে।

অ্যাপ এর মাধ্যমে অনলাইন থেকে আমরা দেখার উপায়ঃ

১। অনলাইনে মামলা দেখতে হলে “MY COURT” অ্যাপ নামে একটি অ্যাপ গুগল প্লে স্টোর থেকে ডাউনলোড করতে হবে। এ্যাপের মাধ্যমে আপনি মামলার যাবতীয় বিবরণ পেয়ে যাবেন। এ অ্যাপটি মামলার সকল বিবরণ এবং তথ্য জানার জন্যই চালু করা হয়েছে।

২। এই অ্যাপটির নাম হলো মাই কোর্ট। মাই কোর্ট হল প্রথম অ্যাপ যা বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী এবং অ্যাডভোকেটদের জন্য তাদের কেস আপডেট সহজে পেতে পারে সেজন্য চালু করা হয়েছে। এই অ্যাপটি হাইকোর্ট বিভাগ এবং আপিল বিভাগের জন্য কাজ করে থাকে।

৩। এই অ্যাপটির মাধ্যমে অনলাইনে সার্চ দিতে গেলে প্রথমে আপনার মামলা নাম্বার দিন। তারা সেগুলিকে ট্র্যাক করে আপনাকে মেইল অথবা SMS এর মাধ্যমে আপডেট জানিয়ে দিবেন। আপনি এই অ্যাপে সহজেই আপনার প্রোফাইল পরিচালনা করতে পারবেন।

আরো পড়ুনঃ মোবাইল দিয়ে সহজে ইনকাম

৪। এই অ্যাপসটি ডাউনলোড করলে বিভিন্ন অপশন চলে আসে। তাই আপনার প্রয়োজনীয় অপশন থেকে মামলার বিবরণ জানতে পারবেন এর জন্য অবশ্যই আপনাকে মামলার নম্বরটি জানতে হবে।

৫। অনলাইন থেকে অ্যাপের মাধ্যমে আপনি যদি মামলা দেখতে চান তাহলে প্রথমে আপনাকে আপনার স্মার্টফোনের ইন্টারনেট সংযোগ করতে হবে।

৬। এবং গুগল প্লে স্টোরে গিয়ে (মাই  কোর্ট) অ্যাপটি ডাউনলোড করতে হবে।

৭। এবং মাই কোড একটি ইন্সটল করে।

৮। আপনি সার্চ করে আপনার প্রয়োজনীয় সকল মামলার তথ্য পেয়ে যাবেন।

৯। মামলা জানার জন্য অবশ্যই আপনার মামলার নম্বরটি দিতে হবে।

ওয়েবসাইটের মাধ্যমে অনলাইন থেকে মামলা দেখার উপায়ঃ

অন লাইনে মামলা দেখার জন্য আপনার হাতে থাকা স্মার্ট ফোন থেকে গুগল ক্রম ব্রাউজারে যেতে হবে এবং ওয়েবসাইটে প্রথমে সংশ্লিষ্ট বিভাগ, পরে জেলা এবং আপনার নির্দিষ্ট আদালতের নাম দিয়ে সার্চ করতে হবে। এখান থেকে বিচারপ্রার্থীগণ তাদের মামলার সর্বশেষ তারিখ, আদেশ, পরবর্তী তারিখ এবং মামলার অবস্থা জানতে পারবেন খুব সহজে।

বিচার বিভাগীয় ড্যাশবোর্ড- বা জুডিসিয়াল মনিটরিং-এর মাধ্যমে অধস্তন আদালতসমূহে বিচারাধীন এবং নিষ্পত্তি হওয়া মামলা সম্পর্কিত সকল ধরনের তথ্য সংগ্রহ প্রদর্শন ও সংরক্ষণ করা হবে।

এর ফলে অধস্তন আদালতের মনিটরিং ও ট্র্যাকিং সিস্টেম হিসেবে আদালতের প্রকৃত অবস্থা, বিচারকর্মের গতি-প্রকৃতি এবং বিচারিক নানান পরিসংখ্যান জানা যাবে। এতে মামলার কাজের অগ্রগতি বৃদ্ধি পাবে।

মিথ্যা জিডি হলে করণীয়

কেউ যদি কোন ঘটনা সাজিয়ে আপনার নামে থানায় মিথ্যা জিডি করে তাহলে আপনার করণীয় হলো থানায় গিয়ে জিডি হয়েছে কিনা তা ভালোভাবে খোঁজ করা। আর অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে যদি জিডি করা হয় তাহলে তিনি না গিয়ে তার আত্মীয়-স্বজন কাউকে দিয়ে থানায় কেউ জিডি করেছে কিনা সে খোঁজ নিতে পারবেন। কারণ যে অভিযুক্তের নামে জিডি করা হয়েছে সে যদি থানায় যায় তাহলে বিভিন্ন সমস্যায় পড়তে পারে।

যখন কোনো ঘটনাকে কেন্দ্র করে থানায় জিডি করা হবে এবং সেই জিডি যদি মিথ্যা হয়ে থাকে তাহলে পুলিশ তার সত্যতা যাচাই করবে পুলিশ তদন্তের সময় যদি মিথ্যা বলে প্রমাণিত হয়। তাহলে অভিযুক্তরা বাদীর ওপরে মানহানির কেস করতে পারেন এবং তারা আদালতের কাছে তারা তাদের নামে মিথ্যা জিডি করা হয়েছে বলে ন্যায্য বিচার দাবি করতে পারবে।

মিথ্যা মামলা থেকে বাঁচার উপায়

আমরা অনেক সময় নানা ঘটনার সম্মুখীন হয়ে থাকে। তেমন একটি হল মিথ্যা মামলা। অনেকে আপনাকে শত্রুতার জের ধরে মিথ্যা মামলায় জড়িত করতে পারে। এবং সেই মামলাটার কথা শুনে আপনি প্রথমে হতবাক হবেন এটাই স্বাভাবিক। আর এই মিথ্যা মামলার অনেকটাই হয় ফৌজরদারি মামলা। ফৌজরদারি মামলায় অনেকেই ভোগান্তির শিকার হয়ে থাকেন। এবং এ সময় মামলার কথা জানতে পেরে অনেকেই পালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন।

আপনার নামে যদি মিথ্যা মামলা হয়ে থাকে এবং আপনি যদি জানতে পারেন এবং জানার পরেও যদি আপনি পালিয়ে যান তাহলে এটা হবে আপনার সব থেকে ভুল সিদ্ধান্ত। আপনাকে এখন সজাগ হয়ে কাজ করতে হবে কারণ আপনার নামে একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।

তাই আপনি সবসময় ভাববেন মিথ্যা মামলা থেকে আপনি কিভাবে রেহাই পাবেন আপনি সেই চেষ্টা করবেন। এবং আদালতে আপনি যথেষ্ট চেষ্টার মাধ্যমে মিথ্যা মামলা থেকে যেন পরিত্রান পেতে পারেন সেজন্য আপনার জানাশোনা কোন আইনজীবীর সাথে আলোচনা করতে হবে।

এজহারার কপি সংগ্রহ

যদি আপনার বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়, তাহলে এজাহারের কপিটি সংগ্রহের করতে হবে। এবং আপনার জানাশোনা আইনজীবীর সঙ্গে আলোচনা করে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন চাইতে পারেন। 

তদন্তকারী যদি আপনার বিরুদ্ধে অভিযুক্তির যদি কোন সত্যতা না পাই তাহলে আপনি চূড়ান্ত প্রতিবেদন জানিয়ে আদালতে পেশ করতে পারবেন।

জামিনের জন্য আবেদন

অনেক সময় আপনি জানতে পারলেন না যে আপনার নামে একটি থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে । এবং পুলিশ এসে আপনাকে অ্যারেস্ট করে থানায় নিয়ে যাওয়ার ২৪ ঘন্টার মধ্যে কোর্টে প্রেরণ করা করবে। তখন আপনার আইনজীবের মাধ্যমে আপনি আদালতের জামিনের জন্য আবেদন করতে পারবেন।

আত্মসমর্পণ

আপনার মামলাটি যদি থানায় না হয়ে আদালতে মামলা (সিআর মামলা) হয়, তাহলে আদালত সমন দিতে পারেন কিংবা গ্রেফতারি পরোয়ানাও জারি করতে পারেন। এ ক্ষেত্রেও আত্মসমর্পণ করে জামিন চাইতে হবে। ক্ষেত্র বিশেষে হাইকোর্ট বিভাগে আগাম জামিন চাইতে পারেন।

আরো পড়ুনঃ টিকটক থেকে সহজে ইনকাম ২০২৩

পাল্টা মামলা দায়ের

দণ্ডবিধির ২১১ ধারা অনুযায়ী মিথ্যা মামলা করা একটি শাস্তিযোগ্য অপরাধ। আপনি নির্দোষ প্রমাণিত হলে মিথ্যা অভিযোগকারী বা মামলা দায়েরকারীর বিরুদ্ধে আপনি পাল্টা মামলা দায়ের করতে পারেন। এছাড়া ক্ষতিপূরণ চাইতে পারেন। মিথ্যা নালিশ আনয়নকারী সব ব্যক্তির বিরুদ্ধে ফৌজদারি কার্যবিধি ২৫০ ধারা অনুযায়ী মিথ্যা মামলায় ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিকে ক্ষতিপূরণ প্রদানের আদেশ করা যায়।

মামলা হলে কতদিন জেল খাটতে হয়ঃ শেষ কথা

প্রিয় পাঠকগণ আজকের এই আর্টিকেলে থানায় মামলা করতে কত টাকা লাগে, মামলা হলে কতদিন জেল খাটতে হয়? অনলাইনে মামলা দেখার উপায়, মিথ্যা জিডি হলে করণীয়, মিথ্যা মামলা থেকে বাঁচার উপায়মামলা হলে কতদিন জেল খাটতে হয়? এ বিষয়গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। আপনি যদি মিথ্যা মামলায় পড়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই আপনাকে এই বিষয়গুলো সম্পর্কে জেনে নিতে হবে।

এতক্ষণ আমাদের সঙ্গে থাকার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। এ ধরনের গুরুত্বপূর্ণ এবং তথ্যমূলক আর্টিকেল আরো পড়তে নিয়মিত আমাদের ওয়েবসাইট ফলো করুন। কারণ আমাদের ওয়েবসাইটের নিয়মিত এ ধরনের আর্টিকেল প্রকাশ করা হয়।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

Skbd IT এর নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url