মুড়ি খাওয়ার ১১টি উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ

মুড়ি খাওয়ার ১১টি উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ সম্পর্কে আজকের এই আর্টিকেলটি যারা জানতে ওপেন করেছেন তাদের রয়েছে বিশেষ কিছু তথ্য। আপনি হয়তো মুড়ি খেতে পছন্দ করেন এই জন্য মুড়ি খাওয়ার ১১টি উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ সম্পর্কে জানতে আগ্রহী।

মুড়ি খাওয়ার ১১টি উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ

আজকে আমরা মুড়ি খাওয়ার ১১টি উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ সম্পর্কে আপনাদের বিস্তারিতভাবে এই আর্টিকেলের মাধ্যমে জানাবো। তাহলে চলুন মুড়মুড়ে সুস্বাদু মুড়ি খাওয়ার ১১টি উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ সম্পর্কে জেনে নিন।

সূচিপত্রঃ মুড়ি খাওয়ার ১১টি উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ

মুড়ির ইংরেজি নাম

আজকের এই আর্টিকেলে আপনার নিশ্চয়ই মুড়ি খাওয়ার ১১ উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ সম্পর্কে জানতে আগ্রহী। মুড়ি বাঙালির কাছে অত্যন্ত মুখরোচক একটি খাবার। বিভিন্ন ভাবে মুড়ি খেতে অনেকেই পছন্দ করেন মুড়ি খাওয়ার রয়েছে বহু উপকারিতা। গ্রাম বাংলা কিংবা শহর আঞ্চলিক মুড়ির প্রভাব সব জায়গায় বিদ্যামান।

আরো পড়ুনঃ করমচা খাওয়ার উপকারিতা

অনেকেই আবার ঝাল মুড়ি খেয়ে থাকেন কিন্তু এই সাধ যুক্ত উপকারিতা ও পুষ্টিযুক্ত মুড়ির ইংরেজি নাম কি কেউ জানেন? প্রায় ৯৯% মানুষই মুড়ির ইংরেজি নাম জানেনা। আমাদের এই প্রতিবেদনের মাধ্যমে আপনারা মুড়ি ইংরেজি নাম কি তা জানতে পারবেন।

মুড়ির ইংরেজি নাম হল: পাফড রাইস (Puffed Rice)। আশা করি আপনারা এখন থেকে মুড়ির ইংরেজি নাম কি জানতে পারলেন।

মুড়ি খাওয়ার উপকারিতা

মুড়ি একটি সুস্বাদু মুরমুরে খাবার। গ্রাম বাংলা বা শহর অঞ্চলে অনেকেই মুড়ি খেতে পছন্দ করেন তবে গ্রামবাংলায় মুড়ি-মুড়কিটা বেশি প্রচলিত রয়েছে। সকাল বিকাল চায়ের নাস্তাই মুড়ি মাখানো অনেকেই পছন্দ করেন। এবং রাস্তাঘাটে অনেকেই মুড়ি ঝালানি খেয়ে থাকেন। এছাড়া মরে কে মুখরোচক করে তুলতে মুড়ির সাথে পিয়াজু চানাচুর ঝাল বড়া বেগনি মিশিয়ে মুড়িকে আরো সুস্বাদু বানিয়ে খেয়ে থাকেন।

মুড়ির রয়েছে বিভিন্ন উপকারিতা। যা জানলে আপনি অবাক হবেন। মুড়ি খাওয়ার ১১টি উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ সম্পর্কে আজকের এই আর্টিকেলে আপনাদের আমরা কিছু তথ্য জানাবো যারা মুড়ি খেতে পছন্দ করেন তারা মুড়ি খাওয়ার ১১টি উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ অনেক উপকৃত হবেন।

  • ওজন নিয়ন্ত্রণ করে
  • রোগ প্রতিরোধ বৃদ্ধি করে 
  • শরীরের শক্তি বৃদ্ধি করে
  • হজম শক্তি বৃদ্ধি
  • হাড় মজবুত করে 
  • পেটের সমস্যা দূর করে 
  • দাঁতের সমস্যা 
  • ঠান্ডা জনিত সমস্যা 
  • মস্তিষ্কের উন্নতি 
  • উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ 
  • গ্যাস ও অম্লল সমস্যা

ওজন নিয়ন্ত্রণ করতে

আপনি যদি ওজন নিয়ন্ত্রণ করতে চান তাহলে মুড়ে আপনার জন্য একটি উপযুক্ত খাবার। মড়িতে রয়েছে কম ক্যালরিযুক্ত উপাদান যা দীর্ঘক্ষণ আপনার পেটে ক্ষুধা নিবারণ করে থাকে। তাই যারা ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে চান তারা নিয়মিত মুড়ি খেতে পারেন।

রোগ প্রতিরোধ বৃদ্ধি করে

মুড়িতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন ডি ও মিনারেল সমৃদ্ধ উপাদান। যা আপনার শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে সক্ষম তাই শরীর থেকে রোগ প্রতিরোধ করতে হলে আপনি নিয়ম মেনে মুড়ি খেতে পারেন।

শরীরের শক্তি বৃদ্ধি

মরিতে রয়েছে কার্যকরী প্রয়োজনীয় শর্করা। যা আমাদের শরীরে শক্তি যোগাতে সাহায্য করে। এছাড়াও শরীরের অলসতা দূর করতে বিশেষভাবে মুড়ি সাহায্য করে থাকে। তাই শরীরের শক্তি বৃদ্ধি করতে এবং অলসতা দূর করতে মুড়ির ভূমিকা অপরিসীম।

হজম শক্তি বৃদ্ধি

যাদের হজমের সমস্যা রয়েছে তারা হজম শক্তি বৃদ্ধি করতে মুড়ি খেতে পারেন। তাই আপনি বদহজম দূর করতে নিয়মিত মুড়ি খেতে পারেন।

হাড় মজবুত করে

মুড়ি হাড় মজবুত করে তুলতে সাহায্য করে। মরিতে রয়েছে আয়রন, ফাইবার ও ক্যালসিয়াম যা আপনার হাড়ের গঠন শক্তিশালী করে তোলে।

পেটের সমস্যা দূর করে

যাদের পেটের সমস্যা রয়েছে এবং পেটের সমস্যায় ভুগছেন তারা মুড়ি ভেজানো পানি খেতে পারেন মুড়ি ভেজানো পানি আপনার পেটকে ঠান্ডা রাখে এবং পেটের বিভিন্ন সমস্যা দূর করে থাকে।

দাঁতের সমস্যা

অনেক সময় দাঁতের সমস্যায় আমরা অসহ্য যন্ত্রণায় ভোগে থাকি এ সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে মুড়ি আপনাকে সাহায্য করতে পারে। নিয়মিত মুড়ি চিবিয়ে খান এতে করে দাঁতের ব্যায়াম হবে এবং যাদের সমস্যাগুলো দূর হবে।

আরো পড়ুনঃ আমের বিচির ১১টি উপকারিতা ও গুনাগুন

ঠান্ডা জনিত সমস্যা

মুড়ি একটি এন্টিঅক্সিডেন্ট খনিজ সমৃদ্ধ উপাদান। এ মুড়ি আপনার শরীরের ঠান্ডা জনিত সকল সমস্যা জ্বর সর্দি - কাশি দূর করতে সক্ষম।

মস্তিষ্কের উন্নতি

মুড়িতে রয়েছে নিউরোট্রান্সমিটার উপাদান। এটি মস্তিষ্কের স্নায়ু উদ্দীপনা ও কগনেটিভ ফাংশনের উন্নতি করে তোলে। তাই প্রতিদিন মুড়ি খেলে মস্তিষ্কের বিভিন্ন উপকারিতা পাওয়া যায়।

উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ

যারা উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে চান এবং এই সমস্ত ভুগছেন তারা মুড়ি খেতে পারেন। কারণ মুড়িতে রয়েছে সোডিয়াম উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ রাখতে সাহায্য করে।

গ্যাস বা অম্বল সমস্যা

শুকনো মরি একমুট চিবিয়ে খেয়ে এক গ্লাস পানি খেয়ে নিন। গ্যাস বা অম্লল সমস্যায় মুড়ি একটি আদর্শ খাবার। ডাক্তারের মতে প্রতিদিন মুড়ি খেয়ে এক গ্লাস পানি খেলে এতে করে গ্যাস অম্বল সমস্যা দূর হয়।

মুড়ি খাওয়ার নিয়ম

আজকের এই আর্টিকেলের মাধ্যমে আমরা মুড়ি খাওয়ার ১১টি উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ সম্পর্কে আপনাদের সামনে বিভিন্ন তথ্য তুলে ধরেছি মুড়ি একটি মুখরোচক খাবার যা বাঙালি জাতি বিভিন্নভাবে খেয়ে থাকে।

অনেকে পুষ্টিগুণ পেতে বিভিন্ন কায়দায় মুড়ি খেয়ে থাকেন কিন্তু মুড়ি খাওয়ার সঠিক কোন নিয়ম নেই আপনি যেভাবে খুশি সেভাবে মুড়ি খেতে পারেন আপনি শুকনো মুড়ি অথবা ভেজা মুড়ি দুটোই খেতে পারেন। তবে শুকনো মড়ির চাইতে ভেজানো মুড়ি খাওয়া পেটের জন্য বিশেষ উপকারী।

অনেকে রাস্তাঘাটে ঝাল মুড়ি খেয়ে থাকেন এছাড়াও ইফতারি মুড়ি মাখানো বিভিন্ন পিয়াজু, বড়া, বুট, বেগুনি দিয়ে মড়ি ঝরানো হয়। যার যেমন ভাবে খাওয়ার ইচ্ছা সে সেভাবে মুখরোচক করে মুড়ি খেতে পারে।

মুড়ির পুষ্টিগুণ

মুড়ি খেতে কেনা পছন্দ করেন বাঙালি জাতির মুখ্য রজক খাবার হিসেবে মড়ি খুবই বিখ্যাত একটি খাবার। আজকের এই প্রতিবেদনে আমরা মুড়ি খাওয়ার ১১টি উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ সম্পর্কে আপনাদের জানাচ্ছি যারা মুড়ি খেতে পছন্দ করেন কিন্তু মুড়ির পুষ্টিগুণ সম্পর্কে জানেন না তারা আমাদের এই আর্টিকেলটি পড়ে মুড়ি পুষ্টিগুণ সম্পর্কে জেনে নিন।

পুষ্টিগুণ : ১৪ গ্রাম মুড়িতে রয়েছে ৫৬ ক্যালরি। কার্বোহাইড্রেটস ১২.৬ গ্রাম, প্রোটিন ১ গ্রাম, ফ্যাট মাত্র ০.১ গ্রাম, ফাইবার ০.২ গ্রাম, পটাসিয়াম ১৬ মিলিগ্রাম, আয়রন ৪.৪৪ মিলিগ্রাম, ম্যাগনেসিয়াম ৪ মিলিগ্রাম, ফসফরাস ১৪ মিলিগ্রাম, থিয়ামাইন ০.৩৬ মিলিগ্রাম এবং নিয়াসিন ৪.৯৪ মিলিগ্রাম।

মুড়ি খাওয়ার অপকারিতা

মুড়ি খাওয়ার রয়েছে বিভিন্ন উপকারিতা অনেকেই মুড়ি খেতে পছন্দ করেন কিন্তু বর্তমানে সময়ের মূল গুলো অনেকটাই ভেজাল যুক্ত। খেয়ে উপকারের বদলে অনেকের অপকারই বেশি হয়ে থাকে। কারণ বর্তমান সময়ের ইউরিয়া মিশ্রিত যা খেলে আমাদের শরীরের ক্ষতি হতে পারে।

আজকের এই আর্টিকেলে আমরা মুড়ি খাওয়ার ১১টি উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ সম্পর্কে আপনাদের সামনে ইতিমধ্যে আলোচনা করেছি মুড়ি খাওয়ার যেমনি রয়েছে উপকারিতা তেমনি রয়েছে এর অপকারিতা। মুড়ি খেলে আপনার যে শরীরের ক্ষতি হতে পারে সে সম্পর্কে জানতে হবে।

১। হাইপার টেনশন বা উচ্চ রক্তচাপ রয়েছে। তারা মুড়ি খাওয়া থেকে বিরত থাকুন।

২। যাদের ইউরিক অ্যাসিড রয়েছে তারা মুড়ি খাওয়া এড়িয়ে চলুন।

৩। যাদের ডায়াবেটিসের সমস্যা রয়েছে তাদের জন্য মুড়ি মারাত্মক হতে পারে কারণ মুড়ির গ্লাইসেমিক রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা বাড়িয়ে থাকে। 

৪। এছাড়াও মুড়ি কার্বোহাইড্রেট সমৃদ্ধ একটি খাবার। তাই মুড়ি আমাদের শরীরে ও যেন বৃদ্ধি করতে পারে।

মুড়ি খাওয়ার ১১টি উপকারিতা ও পুষ্টিগুণঃ শেষ কথা

প্রিয় পাঠকগণ আজকের এই আর্টিকেলে মুড়ি খাওয়ার ১১টি উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ, মুড়ির ইংরেজি নাম, মুড়ি খাওয়ার উপকারিতা, মুড়ি খাওয়ার নিয়ম, মুড়ির পুষ্টিগুণন, মুড়ি খাওয়ার অপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। আশা করি আপনারা উক্ত বিষয়গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পেরেছেন। যেহেতু এটি আমাদের দৈনন্দিন খাবার গুলোর মধ্যে অন্যতম একটি তাই এর সম্পর্কে জেনে নেওয়া জরুরী।

আরো পড়ুনঃ কাঁঠাল খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা

এতক্ষণ আমাদের সঙ্গে থাকার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। এই ধরনের গুরুত্বপূর্ণ আর্টিকেল আরো পড়তে নিয়মিত আমাদের ওয়েবসাইট ফলো করুন। কারণ আমাদের ওয়েবসাইটের নিয়মিত এ ধরনের তথ্যমূল আর্টিকেল প্রকাশ করা হয়।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

Skbd IT এর নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url