কমলা লেবুর উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ

প্রিয় বন্ধুরা আপনারা কি কমলালেবু খেতে পছন্দ করেন? নিশ্চয়ই করেন তাহলে আজকের এই পোস্টটি আপনার জন্যই। আজকের এই পোস্টে আমরা কমলা লেবুর উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ সম্পর্কে আপনাদের সামনে তুলে ধরব। কমলালেবর উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ আমাদের মানবদেহে বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে থাকে।

কমলা লেবুর উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ

আজকের এই আর্টিকেলে আমরা কমলা লেবুর উপকারিতা ও পুষ্টিগুণী সম্পর্কে আপনাদের সামনে আলোচনা করব। তাহলে চলুন আর দেরি কেন আপনাদের পছন্দের ফল কমলা লেবুর উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ সম্পর্কে জেনে নিন।

সূচিপত্রঃ কমলা লেবুর উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ

কমলা লেবুর উপকারিতা

প্রিয় বন্ধুরা, কমলা তো আমরা সকলেই পছন্দ করি কিন্তু এর উপকারিতা সম্পর্কে আমরা  কি জানি? নিশ্চয়ই জানিনা? তাই আপনাদের জন্য আর কিছু না ভেবেই আজকের পোস্টে আমরা কমলালেবুর উপকারিতা সম্পর্কে কিছু তথ্য নিয়ে হাজির হয়েছি। কমলা লেবুর উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ আমাদের মানবদেহে বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে থাকে।

আরো পড়ুনঃ তরমুজ খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা

কমলা লেবুর উপকারিতা ও পুষ্টিগুণঃ

হাই ব্লাড প্রেসার

হাই ব্লাড প্রেসারের রোগীর জন্য কমলালেবু অত্যন্ত কার্যকরী একটি উপাদান । কমলালেবুতে রয়েছে পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম ,ভিটামিন বি ও  হেসপিরিডিন যৌগ যা রক্তের উচ্চচাপকে নিয়ন্ত্রণ করে ।

দৃষ্টি শক্তি  বাড়াতে

কমলালেবু রয়েছে ভিটামিন এ যা আমাদের দৃষ্টি শক্তি বাড়াতে এবং রাতকানা রোগের জন্য কমলালেবু অত্যন্ত কার্যকরী একটি ফল। এছাড়াও চোখের বিভিন্ন সমস্যা প্রতিরোধ করে থাকে এই কমলালেবু।

হৃদ রোগ

কমলালেবু হৃদ রোগের জন্য বিশেষ উপযোগী একটি ফল। এই ফলে রয়েছে ভিটামিন সি ,কলিন, ফাইবার উপাদান যা স্ট্রোক ,অ্যাথমিয়আ ও হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা কমিয়ে দেয়।

পেটের সমস্যা

কমলালেবু পেটের যেকোনো সমস্যা যেমন বদহজম খাওয়াতে অরুচি ও কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে থাকে।

ক্যান্সার প্রতিরোধে

কমলালেবু আমাদের মরণব্যাধি ক্যান্সার সারাতে অত্যন্ত কার্যকরী একটি ফল ত্বক ,মুখ, বেস্ট, পাকস্থলী ফুসফুসি ও কোল ক্যান্সার প্রতিরোধে সাহায্য করে থাকে।

 ক্ষতস্থান নিরাময়

কমলালেবু ক্ষতস্থান নিরাময়ে জন্য একটি বিশেষ ফল। অন্যান্য সাইট্রাস ফলের মতো কামড়ালেবু ক্ষতস্থান নির্ময়ে বেশ কার্যকরী।

ডায়াবেটিকস

আপনি যদি ডায়াবেটিকস রোগী হয়ে থাকেন তাহলে নিয়মিত কমলা লেবু খাবেন। কারণ কমলালেবুর তে থাকা ফাইবার এবং ফাইটোনিউট্রিয়েন্টস রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ রাখে।

ত্বককে সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে 

ত্বককে সৌন্দর্য বৃদ্ধি করতে কমলালেবুতে থাকা ভিটামিন সি ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট অত্যন্ত কার্যকরী একটি টিপস। কমলা লেবু আপনার ত্বকে উজ্জ্বল ঝকঝকে ও বিভিন্ন ব্রণ ও মুখের দাগ দূর করতে সাহায্য করে থাকে।

মানসিক অবসাদ

অনেক সময় আমরা মানসিক অবসাদ ভোগ করে থাকি সেই মানসিক অবসাদ থেকে মুক্তি পেতে নিয়মিত কমলা খেতে পারেন। কমলালেবু স্টোক হরমোনের ক্ষরণ কমিয়ে মুড বুস্টিং হরমোনের ক্ষরণ বাড়ায়। এছাড়াও কমলা লেবু স্মৃতিশক্তি বাড়াতে বেশ কার্যকরী।

কমলা লেবুর জুস

আজকের এই আর্টিকেলে আমরা কমলা লেবুর উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ সম্পর্কে আপনাদের সামনে কিছু তথ্য তুলে ধরেছি। কমলালেবু সকলেই আমরা পছন্দ করে থাকি। এটি শীতকালীন একটি ফল। শীত ছাড়াও বারোমাসি এ ফলটি আমদানি হয়ে থাকে। কমলার জুস কে না পছন্দ করে, কিন্তু কমলার জুস খেলে আপনি কোন পুষ্টি ও কি উপকার পাবেন তা জেনে নিন।

১। কমলা একটি টক মিষ্টি জাতীয় ফল। এই ফলটিতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি রয়েছে। এই ফলের রস খেলে আমাদের ভিটামিন সি এর চাহিদা পূরণ হয়ে থাকে।

২। কমলায় থাকা ভিটামিন সি আমাদের সর্দি কাশির জন্য বিশেষ উপযোগী তাই আপনার সর্দি কাশি হলে অবশ্যই কমলালেবু খাবেন।

৩। কমলালেবুতে থাকা বিটা ক্যারোটিন সেল ড্যামেজ প্রতিরোধে সহায়তা করে। কমলার জুসে রয়েছে ভিটামিন ডি যা খেলে আপনার হৃদরোগের ঝুঁকি অনেকটাই কমে যাবে। কমলার জুসে থাকা ভিটামিন সি  আপনার ক্ষতস্থান তাড়াতাড়ি নিরাময় করে। 

৪। কমলা লেবুতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে  অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট আপনার  ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করে সহায়তা করে। কমলাতে উপস্থিত থাকা লিমিনয়েড এই স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধে করে।

শীতে কমলালেবু কেন খাবেন

আমরা বারোমাসি বিভিন্ন ধরনের ফল খেয়ে থাকি। কিন্তু শীতকালে নানা ধরনের ফলের সমাহার হয়ে থাকে। এই শীতে কমলালেবু কেন খাবেন। কমলালেবু অনেক সময় সর্দি-কাশির ওষুধের বিকল্প হিসেবে কাজ করে থাকে। তাহলে দেখি শীতে কমলালেবু  কেন খাবেন ও রোগ প্রতিরোধে কতটুকু সক্ষম।

শীতে ত্বকের যত্নে

কমলায় প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি রয়েছে। যা আমাদের শরীরের প্রায় ১২০% সরবরাহ করে থাকে। কমলা লেবু আমাদের শরীরের কোলাজেন তৈরি করে থাকে। জাতক ও চুলের স্বাস্থ্য রক্ষার জন্য অতি প্রয়োজনীয় একটি উপাদান। কমলাই থাকা ভিটামিন এ চুলকে সতেজ রাখতে সাহায্য করে। শীতে ত্বকে ও চুলের যত্নে নিয়মিত কমলালেবু খেতে পারেন।

সর্দি কাশি

শীতকালে অনেকেই সর্দি কাশি মত সমস্যায় ভুগে থাকেন। এই সমস্যা কাটাতে নিয়মিত কমলালেবু খেতে পারেন। কমলা লেবুতে রয়েছে ভিটামিন সি। যা বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে থাকে।

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে

শীতে অনেক সময় আমাদের পানি শূন্যতার কারণে কোষ্ঠকাঠিন্যর মত সমস্যা দেখা দেয়। কারণ শীতে আমাদের শরীরের আদ্রতা কমে যায় এবং পানির খাওয়ার পরিমাণ কমে যায়। যার কারনে কোষ্ঠকাঠিন্য হয়ে থাকে এ সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে নিয়মিত খান কমলালেবু। নিয়মিত কমলা লেবু খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য পেটের যে কোন সমস্যা ও বদহজম হজম জনিত সমস্যা দূর হয়।

আরো পড়ুনঃ ডাব খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা

হৎপিণ্ড সুস্থ রাখে

হৎপিণ্ড সুস্থ রাখতে নিয়মিত খান কমলা লেবু। কমলায় প্রচুর পরিমাণে ফাইবার, ভিটামিন বি সিক্স, ভিটামিন সি থাকায় আপনার হৎপিণ্ড সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। ভিটামিন বি সিক্স রক্তের হিমোগ্লোবিন বাড়াই। এছাড়াও কমলা লেবু শরীরের আয়রন শোষণ উন্নত করে।

কোলেস্ট্রলের মাত্রা ঠিক রাখে

কমলালেবু তে থাকা ভিটামিন সি যা আপনার কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ রাখে এবং অতিরিক্ত কোলেস্ট্রল ঝরিয়ে ফেলে। এছাড়াও কমলালেবু ওজন কমাতে বিশেষ কার্যকরী।

রূপচর্চায় কমলা লেবুর খোসা

কমলালেবু উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ অনেক। এটি খাদ্যের চাহিদা পূরণ ছাড়াও বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে থাকে। এবং রূপচর্চায় কমলালেবুর খোসা বিশেষ উপযোগী। অনেক সময় মেয়েরা রূপচর্চায় কমড়ালেবুর খোসা ব্যবহার করে থাকেন। আপনার চেহারা দিন দিন কি রুক্ষ ও শুষ্ক হয়ে উঠছে, আপনি কি ব্রণ সমস্যায় ভুগছেন? তাহলে জেনে নিন আজকেরে আর্টিকেলে কমলার খোসা দিয়ে রূপচর্চা করার পদ্ধতি।

ত্বকের উজ্জ্বলতা ও বিভিন্ন সমস্যা দূর করতে কমলার চেয়ে কমলার খোসা বেশি উপযোগী। আপনি কমলার খোসা বিভিন্নভাবে সংগ্রহ করতে পারেন এটি বাজারও কিনতে পাওয়া যায় । কিন্তু আপনি যদি মনে করেন বাড়িতে এটি বানাবেন তাহলে আপনি ১০/১২টি কমলা নিয়ে তার খোসা ছাড়িয়ে রোদে শুকিয়ে ব্লেন্ডারে গুড়া করে কাঁচের বয়ফ্রেন্ডে রেখে দিতে পারেন। এছাড়াও আপনি পানি দিয়ে মিশিয়ে  ত্বকে ব্যবহার করতে পারেন।

ত্বকে ক্লিনজার

আপনার ত্বকটি পরিষ্কার করতে প্রথম ধাপ ত্বক ক্লিনজিং। কমলার খোসা দিয়ে খুব কার্যকরী ভাবে আপনি আপনার ত্বকটি পরিষ্কার করে নিতে পারেন। কমলার খোসায় রয়েছে অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল অ্যান্টি ম্যাটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য। এটি ত্বকের লাইটনিং এজেন্ট  হিসেবে কাজ করে। কমলার খোসা যুক্ত ফেস প্যাকগুলো ত্বকের ফেস  ক্লিনজার হিসেবে ব্যবহার করায় ত্বককে অনেক সতেজ দেখাই।

শসা ও কমলারখোসা ক্লিনজার

প্রথমে শশাটি কেটে মুখের কোষ গুলো বের করে ছোট ছোট টুকরো কমলার খোসার সঙ্গে ব্ল্যান্ড করে নিন। প্রয়োজনে একটু পানি দিতে পারেন। তৈরি হয়ে গেল আপনার ত্বকের ক্লিনজার

দুই তালুর সাথে আলতো ভাবে ঘষে মুখ সাবানের মত পরিষ্কার করুন। এবং ধুয়ে ফেলুন। এই ক্লিনজার সব ধরনের ত্বকের জন্য উপযুক্ত । তবে আপনার ত্বক যদি রুক্ষ শুষ্ক হয়ে থাকে তাহলে আপনি ১/২ ফোঁটা ইসেশিয়াল তেল ব্যবহার করুন

ক্লিনজারের দ্বিতীয় ধাপ হলো স্ক্রাবিং। চলুন দেখি নি  কমলালেবু খোসা দিয়ে বডি স্ক্রাব কেমন করে করবেন।

১.চিনি এক কাপ 

২.নারিকেল তেল বা অলিভ অয়েল তেল ৩/৪

৩.মধু ২ চামচ 

৪.তাজা কমলা ১টি

একটি পাত্রে চিনি, তেল, মধু একসাথে মিশিয়ে নিন। এবং একটি গ্রেটারের সাহায্যে কমলার খোসা আস্তে আস্তে কুচি করে দিন। খেয়াল রাখতে হবে যেন কমলার খোসার সাদা অংশটি না দিয়ে ফেলেন। এবার প্যাকটি ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। তৈরি হয়ে গেল স্ক্রাব। ফেসিয়ালের সময় মুখ পরিষ্কার করে অথবা গোসলের সময় ভালোভাবে মুখে ও সারা শরীরে মাখিয়ে রাখতে পারেন। এটি সব ধরনের ত্বকের জন্য উপযোগী।

কমলালেবুর বিচির গুনাগুন

প্রিয় বন্ধুরা আপনারা এতক্ষণ যারা আমাদের পোষ্টের সাথে ছিলেন তারা নিশ্চয়ই কমলালেবুর উপকারিতাও পুষ্টিগুণ সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পেরেছেন। কমলালেবুর মত কমলার খোসাতেও রয়েছে বিভিন্ন কার্যকারিতা। এবার চলুন কমলালেবুর বিচির গুনাগুন গুলো জেনে নিন।

অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট

কমলার পাশাপাশি কমলালেবু বিচিতে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট শরীরকে বিষমুক্ত করতে সাহায্য করে। তাই শীতে ডায়েটের প্রতিদিন একটা করে কমলা লেবু খাবেন। এছাড়াও সর্দি কাশি সঙ্গে লড়তে ভিটামিন সি যুক্ত ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যুক্ত কমলালেবু বিশেষ কার্যকরী।

খাবারের স্বাদ বাড়ায়

শীতকাল হল কমলালেবুর মৌসুম। আর পিঠাপুলের খাওয়ার সময়। কেক তৈরিতে এই বিচির তেল অতি প্রয়োজনীয় একটি উপকরণ। কমলালেবু টক মিষ্টি গন্ধ যেকোনো ডেজার্ট তৈরিতে একটি বিশেষ উপকরণ হিসেবে কাজ করে থাকে। এবং খাবার গুলোর স্বাদ বাড়িয়ে তোলে।

এনার্জি বাড়ায়

কমলালেবুর বিচি স্বাদ তেতো। কিন্তু পালমেটিক ওলেইক আর লিনোলেইক এসিড থাকায় কমলা লেবুর রসের সাথে এই বিচি খেলে ঠান্ডা লাগা থেকে আপনি রেহাই পাবেন।

চুলের যত্নে 

কমলালেবুর বিচির তেল আপনার চুলের জন্য কন্ডিশনার হিসেবে বিশেষ কার্যকরী। ভিটামিন  সি তে সমৃদ্ধ এই তেল আপনার চুলের গোড়ায় মালিশ করলে রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি পাবে। এতে চুল প্রাণ ফিরে পায় স্বাস্থ্য উজ্জ্বল করে তোলে এবং চুলের বিভিন্ন সমস্যা দূর করে।

পরিষ্কার রাখতে

বিচির ভেতরে থাকা তেল বিশেষ ক্লিনজার হিসেবে কাজ করে। মেশিনের গা থেকে তেলের দাগ ছোপ কমাতে ও কঠিন থেকে কঠিনতর ময়লা তুলতে এই তেল কাজে লাগে। এছাড়াও কমলা লেবুর বিচির তেল যে কোন দুর্গন্ধ সারাতে সাহায্য করে।

কমলা লেবুর অপকারিতা

প্রিয় বন্ধুরা, আপনার পছন্দের কমলালেবুটি আপনার ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে কমলা লেবুর উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ যেমন রয়েছে তেমন এর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া রয়েছে। তাই কমলালেবু খাওয়ার আগে চলুন কমলা লেবুর অপকারিতা গুলো জেনে নিন।

আরো পড়ুনঃ ডালিম খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা

১। অতিরিক্ত কমলালেবু খাওয়ার ফলে আপনার পেট ব্যথার মত সমস্যা সৃষ্টি হতে পারে।

২। অতিরিক্ত কমলালেবু আপনি যদি খেয়ে থাকেন তাহলে আপনার ডায়রিয়ার মত সমস্যা সৃষ্টি হবে।

৩। আবার অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় অতিরিক্ত ও অনিয়ত কমলার পরিমাণ বেশি খাওয়ার কারণে বুক জ্বালা বদহজম ও গলা জলার মত সমস্যা দেখা দিতে পারে।

৪। অনেক ক্ষেত্রে আবার দেখা যায় যাদের হার্ট ও কিডনি সমস্যা রয়েছে এবং ডাক্তার অনেক সময় কমলালেবু খাওয়া থেকে নিষেধাজ্ঞা দিয়ে থাকেন। কমলালেবু তো রয়েছে পটাশিয়াম অনেক সময় হার্ট ও কিডনি সমস্যায় যারা ভোগেন এবং পটাশিয়ামযুক্ত খাবার থেকে নিষেধাজ্ঞা থাকে তারা এ থেকে বিরত থাকবেন।

আমাদের শেষ কথাঃ কমলা লেবুর উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ

বন্ধুরা আপনারা যারা এতক্ষণ আমাদের পোস্টের সাথে ছিলেন এবং আমাদের পোস্টটি শেষ পর্যন্ত মনোযোগ সহকারে পড়েছেন। তারা নিশ্চয়ই কমলা লেবুর উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। কমলালেবু আমাদের বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে। কমলালেবুর অপকারিতার চাইতে উপকারিতা অনেক। তা আসন আমরা  কামড়ালেবুর উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ সম্পর্কে জানি এবং  নিয়মিত কমলালেবু খায়।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url